বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ২৪, ২০২২

বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ সবার আগে

১০ টি পয়েন্টে পৃথক সমাবেশ, ঘরে ফেরার দাবি বিশ্বকে জানাতে ব্যাপক প্রস্তুতি রোহিঙ্গাদের

বিশেষ প্রতিনিধি :

“গো হোম ক্যাম্পেইন” শিরোনামে কক্সবাজারে
ক্যাম্পগুলোতে সমাবেশ করতে যাচ্ছে রোহিঙ্গারা।
অনলাইন-অফলাইনে ব্যাপক প্রচারণার পাশাপাশি সমাবেশ কে সফল করতে নেওয়া হয়েছে সবধরনের প্রস্তুতি।

রবিবার (১৮ জুন) সকালে উখিয়া-টেকনাফের ১০ টি ক্যাম্পের নির্ধারিত স্থানে নিজ ঘরের ফেরার দাবি নিয়ে অনুষ্ঠিত হবে পৃথক সমাবেশ হবে বলে জানা গেছে।

উখিয়ার ৯,১৪,১৩,১৭,২ ওয়েস্ট,১ ওয়েস্ট,৪ ও ১৮নং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের নির্ধারিত স্থানে সকাল ৮ টা থেকে সমাবেশ শুরু হবে। যেখানে উল্লেখিত ক্যাম্পগুলোর পার্শ্ববর্তী ক্যাম্পের রোহিঙ্গারা অংশ নিবেন। এছাড়াও টেকনাফের ক্যাম্প গুলোতেও হবে সমাবেশ।

২০২১ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর দুর্বৃত্তের গুলি নিহত রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহ একই দাবিতে ২০১৯ সালের ২৫ আগস্ট অনুষ্ঠিত মহাসমাবেশের নেতৃত্বে ছিলেন।
তবে, এবারের সমাবেশের একক কোন আয়োজক কিংবা নেতৃত্ব পর্যায়ের কেউ সামনে না এলেও প্রচারপত্রে আয়োজক হিসেবে ” নির্যাতিত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী লেখা হয়েছে।

রোহিঙ্গাদের রোহিঙ্গা বলেই ডাকা, দ্রুত সময়ের মধ্যে প্রত্যেক রোহিঙ্গাকে আরাকানের গ্রামে গ্রামে প্রত্যাবাসন , প্রত্যাবাসন সংক্রান্ত প্রত্যেক চুক্তি অন্তর্ভুক্ত করা, প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়ায় অবশ্যই যুক্তরাষ্ট্র, জাতিসংঘ, ওআইসি, যুক্তরাজ্য, ইউরোপীয়ান ইউনিয়ন, বাংলাদেশ, এনজিও, সংশ্লিষ্ট সবাইকে অন্তর্ভুক্ত করা, বার্মার ১৯৮২ সালের নাগরিকত্ব আইন বাতিল, সম্পত্তি ফেরত, স্বাধীনভাবে বেঁচে থাকার অধিকারসহ ইত্যাদি দাবী উত্থাপন করা হবে এবারের সমাবেশ থেকে বলে জানিয়েছেন সাধারণ রোহিঙ্গারা।

উখিয়ার ৪নং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের হেড মাঝি মোহাম্মদ হোসেন বলেন, ” আমরা নিরাপদ প্রত্যাবাসন চাই এবং আমাদের আশা এবারের সমাবেশটির মাধ্যমে উত্থাপিত রোহিঙ্গাদের যৌক্তিক দাবিগুলো আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে গুরুত্ব পাবে।”

রোহিঙ্গা ইয়ুথ এসোসিয়েশন এর সভাপতি কিন মং বলেন, ” সম্মান ও মর্যাদার সাথে আমাদের দেশ মায়ানমারে ফিরতে চাই আমরা, সমাবেশে আমরা এই মূল দাবীটাই জানাবো বিশ্ববাসীর কাছে। বাংলাদেশ সরকার আমাদের আশ্র‍য় দিয়ে মানবিক দৃষ্টান্ত তৈরি করেছে, আমরা কৃতজ্ঞ।”

অতিরিক্ত শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মোহাম্মদ সামছু-দ্দৌজা বলেন, ” রোহিঙ্গারা নিজ নিজ অবস্থান থেকে দাঁড়িয়ে বাড়ি ফিরে যাওয়ার ইচ্ছার কথা জানাবেন। তাঁদের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে বাধা দেওয়া হবে না ।”

তবে, এখন পর্যন্ত দাঁড়িয়ে মানববন্ধন ছাড়া রোহিঙ্গাদের বড় কোনো জমায়েত কিংবা বিক্ষোভ মিছিল-সমাবেশের অনুমতি দেওয়া হয়নি বলে জানান তিনি।

ক্যাম্পে আইন শৃঙ্খলায় নিয়োজিত ৮ এপিবিএন এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মিডিয়া) কামরান হোসাইন জানান, ” সমাবেশের তথ্য আমরা পেয়েছি, ক্যাম্প এলাকার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ ও সার্বিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে ৮ এপিবিএনের তৎপরতা সবসময় অব্যাহত আছে।”

২০১৭ সালের আগস্টে মায়ানমারের সেনাবাহিনীর দমন নিপীড়নের মুখে বাংলাদেশে নতুন করে পালিয়ে আসে বিপুল সংখ্যক রোহিঙ্গা, সরকারি হিসেবে যাদের সংখ্যা এখন প্রায় ১১ লাখেরও বেশি।

সর্বশেষ খবর

কক্সবাজারের ডিসি মামুনুর রশীদ কে স্বাস্থ্য সেবা বিভাগে বদলী,নয়া ডিসি মুহাম্মদ শাহীন এমরান

নিজস্ব প্রতিবেদক: কক্সবাজারের নতুন জেলা প্রশাসক হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন মুহাম্মদ শাহীন এমরান। তিনি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পরিচালক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। ২৩ নভেম্বর বুধবার জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের মাঠ...

বাঁশের অংশ দিয়ে নির্মিত হচ্ছে মহেশখালীতে মুজিববর্ষের ঘর

কাব্য সৌরভ, মহেশখালী- মহেশখালীতে গৃহহীন হতদরিদ্রদের প্রধানমন্ত্রীর দেয়া মুজিববর্ষের ঘরের ফ্লোর করা হচ্ছে বাঁশের অংশ দিয়ে। এখনো ঘর গুলো পুরো নির্মিত হয়নি এরই মধ্যে কিছু...

কক্সবাজারে সাংবাদিকদের দক্ষতা উন্নয়নে প্রশিক্ষন কর্মশালা অনুষ্ঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক: খাদ্য নিরাপত্তা ও টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট লক্ষ্য (এসজিডি) অর্জনে এবং কৃষি উদ্ভাবনকে কার্যকরভাবে ব্যবহারে প্রান্তিক কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করতে প্রমাণ-ভিত্তিক কৃষি সংবাদ প্রচারে কক্সবাজারের...

কুতুবদিয়ায় অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে উপজেলা কৃষকদলের ত্রাণ বিতরণ

কুতুবদিয়া প্রতিনিধিঃ বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী কৃষকদল কুতুবদিয়া উপজেলা শাখার উদ্যোগে অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছে। বুধবার বিকেলে উপজেলা বড়ঘোপ ইউনিয়নের দক্ষিণ অমজাখালী অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে...