বুধবার, ফেব্রুয়ারি ১, ২০২৩

বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ সবার আগে

নারীদের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের দরজা বন্ধ ঘোষণা তালেবানের

টিটিএন ডেস্ক:
আফগানিস্তানের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে এখন থেকে আর কোনো নারী শিক্ষার্থী শিক্ষা গ্রহণ করতে পারবেন না। সে দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে নারীদের প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তালেবানের উচ্চ শিক্ষামন্ত্রীর একটি চিঠিতে এ ঘোষণা দেয়া হয়।

মঙ্গলবার (২০ ডিসেম্বর) দিবাগত রাতে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে বিবিসি। শিগগিরই এই নির্দেশনা বাস্তবায়নের কথা বলা হয়েছে চিঠিতে।

তালেবানের উচ্চ শিক্ষামন্ত্রী চিঠিতে বলেন, পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত এই পদক্ষেপ অব্যাহত থাকবে। এটি অবিলম্বে কার্যকর হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

এই আইন কার্যকর হলে, আনুষ্ঠানিক শিক্ষায় নারীদের প্রবেশাধিকার আরও সীমাবদ্ধ করে ফেলবে। কেননা তারা ইতোমধ্যেই মাধ্যমিক শিক্ষা থেকে বাদ পড়েছে।

তিন মাস আগে আফগানিস্তান জুড়ে হাজার হাজার নারী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রবেশিকা পরীক্ষায় বসেছিল। তবে তারা যে বিষয়গুলো অধ্যয়ন করতে পারে তার ওপর ব্যাপক বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছিল। পশু চিকিৎসা, বিজ্ঞান, প্রকৌশল, অর্থনীতি এবং কৃষি শিক্ষায় নারীদের অংশগ্রহণ নিষিদ্ধ করে তালেবান প্রশাসন। এ ছাড়া দেশটিতে সাংবাদিকতা শিক্ষায় নারীদের অংশগ্রহণ কঠোরভাবে সীমাবদ্ধ।

২০২১ সালে ক্ষমতা দখলের পর বিশ্ববিদ্যালয়ে নারী ও পুরুষদের জন্য আলাদা শ্রেণিকক্ষের ব্যবস্থা করে তালেবান। এছাড়া নিয়ম জারি করা হয় যে, নারী শিক্ষার্থীদের শুধু নারী ও বৃদ্ধ শিক্ষকরা পড়াতে পারবেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ে নারী শিক্ষার্থীদের প্রবেশ ও শিক্ষা কার্যক্রম নিষিদ্ধ করার পর ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। একজন শিক্ষার্থী নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন, নারী ও তাদের শক্তিকে ভয় পায় তালেবান। ভবিষ্যতের সঙ্গে আমার সংযোগ তৈরিকারী একমাত্র সেতুটি তারা ধ্বংস করে দিয়েছে।

তিনি আরো বলেন, আমি কিভাবে প্রতিক্রিয়া দেখাব? আমার বিশ্বাস ছিল আমি পড়ালেখা করে ভবিষ্যৎ পরিবর্তন বা জীবনে আলো আনতে পারব। কিন্তু তারা সব শেষ করে দিল।

এর আগে গত নভেম্বরে, তালেবান কর্তৃপক্ষ রাজধানী কাবুলের পার্কগুলোতে নারীদের নিষিদ্ধ করেছিল। তাদের যুক্তি ছিল, সেখানে ইসলামিক আইন মানা হচ্ছে না।

তালেবান ক্ষমতায় যাওয়ার পরই আফগানিস্তানের শিক্ষাখাতে ব্যাপক প্রভাব পড়ে। গত বছর মার্কিন নেতৃত্বাধীন বাহিনী প্রত্যাহারের পর প্রশিক্ষিত শিক্ষাবিদদের অনেকেই দেশত্যাগ করেন। এ ছাড়া অনেক শিক্ষক বেতন থেকে বঞ্চিত হতে থাকেন।

সূত্র: বিবিসি

সর্বশেষ খবর

রামুর গর্জনিয়ায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে প্রাণ গেল যুবকের

নিজস্ব প্রতিবেদক : কক্সবাজারের রামুর গর্জনিয়ায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে এক যুবক প্রাণ হারিয়েছে। মঙ্গলবার (৩১ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় ইউনিয়নের পূর্বজুমছড়ি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। মারা যাওয়া যুবকের নাম...

স্থানীয় জনগোষ্ঠীর কর্মসংস্থান তৈরি করছে সরকারের ইজিপিপি প্রকল্প- উখিয়ায় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক

শামিমুল ইসলাম ফয়সাল, উখিয়া: রোহিঙ্গাদের কারণে চ্যালেঞ্জের মুখে পড়া স্থানীয় জনগোষ্ঠীর অর্থনীতি সচল রাখার পাশাপাশি কর্মস্থান তৈরিতে ভূমিকা রাখছে সরকারের অতিদরিদ্রের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচি (ইজিপিপি)...

জিরো পয়েন্টে থাকা রোহিঙ্গারা ঢুকে পড়েছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

টিটিএন ডেস্ক: পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন বলেছেন, বাংলাদেশে-মিয়ানমার জিরো পয়েন্টে যেসব রোহিঙ্গা ক্যাম্প ছিল, তা এখন আর নেই। কিছু রোহিঙ্গা ঢুকে পড়েছে। তবে...

বঙ্গবন্ধু ছিলেন বিশ্ব শ্রেষ্ঠ জাতীয়তাবাদের নেতা- রামুতে মাহাবুবুল হক মুকুল

হাফিজুল ইসলাম চৌধুরী: বঙ্গবন্ধু ছিলেন বিশ্ব শ্রেষ্ঠ জাতীয়তাবাদের নেতা। বাঙালীর জন্য মমত্ববোধ ভালোবাসা দেখিয়ে, কৃষক-শ্রমিকের উন্নতির জন্য কাজ করেছেন। বাংলার কৃষক-শ্রমিকের অধিকার আদায়ের জন্য কাজ...