শনিবার, নভেম্বর ১২, ২০২২

বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ সবার আগে

দুর্গোৎসবে প্রস্তুত জেলার ৩০৫ টি পূজা মণ্ডপ

রাহুল মহাজন :

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গোৎসবের পুণ্যলগ্ন শুভ মহালয়া হয়ে গেছে গত রোববার। এদিন থেকেই শুরু দেবীপক্ষের। আর মাত্র এক দিন পরই ষষ্ঠীপূজার মাধ্যমে দুর্গাপূজা শুরু।

কক্সবাজার জেলা পূজা উদযাপন পরিষদ জানিয়েছে, পুরো জেলায় ৩০৫ টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা হবে। মণ্ডপগুলোতে বাহারি রঙের আলোকসজ্জাসহ চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি।

আগামীকাল শনিবার ষষ্ঠী তিথিতে দেবী দুর্গার বোধন, আমন্ত্রণ ও অধিবাসের মধ্য দিয়ে শুরু হবে দুর্গোৎসবের আনুষ্ঠানিকতা।২ অক্টোবর সপ্তমী, ৩ অক্টোবর মহাষ্টমী ও কুমারী পূজা, ৪ অক্টোবর মহানবমী এবং ৫ অক্টোবর বিজয় দশমীতে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হবে দুর্গোৎসব।দশমীতে শহরের বিভিন্ন মন্দির থেকে বের করা হবে বিজয়া শোভাযাত্রা।

এ বছর জেলার নয়টি উপজেলা ৩০৫ টি মণ্ডপে শারদীয় দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে।তার মধ্যে সবচেয়ে বেশি পূজা অনুষ্টিত হবে চকরিয়া উপজেলায়।চকরিয়া উপজেলায় (পৌরসভাসহ) ৪৮টিতে প্রতিমা পূজা ও ৪৩টিতে ঘট পূজা। কক্সবাজার সদর উপজেলায় ১৭টিতে প্রতিমা পূজা ও ১১টি ঘট পূজা, ঈদগাঁও উপজেলায় ১৭টি প্রতিমা পূজা ও ৯টিতে ঘট পূজা, কক্সবাজার পৌরসভায় ১১টিতে প্রতিমা পূজা ও ১০টিতে ঘট পূজা, রামু উপজেলায় ২২টিতে প্রতিমা পূজা ও ১০টিতে ঘট পূজা, , পেকুয়া উপজেলায় ৫টিতে প্রতিমা পূজা ও ৪টিতে ঘট পূজা, কুতুবদিয়া উপজেলায় ১৩টিতে প্রতিমা পূজা ও ৩২টিতে ঘট পূজা, মহেশখালী উপজেলায় (পৌরসভাসহ) ১টিতে প্রতিমা পূজা ও ৩০টিতে ঘট পূজা, উখিয়া উপজেলায় ৭টিতে প্রতিমা পূজা ও ৮টিতে ঘট পূজা, টেকনাফ উপজেলায় ৬টিতে প্রতিমা পূজা ও উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ১টিতে প্রতিমা পূজা অনুষ্ঠিত হবে।

শুক্রবার সকাল থেকে একাধিক মন্দিরে গিয়ে দেখা যায়, প্রতিমা শিল্পীরা দিনরাত দুর্গা, সরস্বতী, লক্ষ্মী, গণেশ, কার্তিক, অসুর, সিংহসহ অন্য প্রতিমা সাজাতে ব্যস্ত সময় পার করছেন।চলছে রং আর তুলি দিয়ে প্রতিমা সাজানোর কাজ। এ ছাড়াও প্রতিমা তৈরির পাশাপাশি অন্যান্য মন্দিরের সাজসজ্জায় চলছে বিশেষ প্রস্তুতি।

জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক বেন্টু দাশ এ বিষয়ে বলেন, ‘শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে এরইমধ্যে একাধিক সভা করা হয়েছে। পূজা শান্তিপূর্ণভাবে সম্পাদনের জন্য আমাদের প্রশাসনের সর্বস্তরের সহযোগিতা প্রয়োজন। আমরা ইতিমধ্যে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের সঙ্গে কথা বলেছি। তারা আমাদের সার্বিক নিরাপত্তা ও সব সুযোগ-সুবিধা দেওয়ার কথা জানিয়েছেন।’

আসন্ন দুর্গাপূজাকে ঘিরে কঠোর নিরাপত্তা দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন জেলা ও পুলিশ প্রশাসন।

নিরাপত্তার বিষয়ে পুলিশ সুপার মহাফুজুর রহমান বলেন, ‘শান্তিপূর্ণ ও সুশৃঙ্খলভাবে পূজা করার জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণে পুলিশ ও আনসারসহ নিরাপত্তা প্রদান করা হবে।’

সর্বশেষ খবর

কক্সবাজারে যাত্রা শুরু করেছে বীর শো রুম

শাহেদ হোছাইন মুবিন: কক্সবাজার শহরের বাজারঘাটা আবু সেন্টারের ২য় তলায় উদ্বোধন হলো বীর নামের শো রুমের। যেখানে থাকছে নিত্য নতুন ডিজাইনের জুতোর কালেকশন। চীন থেকে...

টেকনাফে বিপুল পরিমাণ মাদক উদ্ধার

নিউজ ডেস্ক : কক্সবাজারের টেকনাফে বিজিবির অভিযানে প্রায় ২ কেজি ওজনের ক্রিস্টাল মেথ আইস ও ৩০ হাজার ইয়াবাসহ উদ্ধার করা হয়। শুক্রবার সন্ধ্যায় টেকনাফের লেদায় অভিযান...

বাঁকখালী নদীতে ব্রাজিলের পতাকা

শিপ্ত বড়ুয়া, রামু: কক্সবাজারের রামুতে বাঁকখালী নদীর বুকে ব্রাজিল সমর্থকেরা তুলেছে ১০০ ফুট লম্বা পতাকা। পূর্ব রাজারকুল বড়ুয়া পাড়া গ্রামের ছোটন বড়ুয়া নামে এক ব্রাজিল...

আজ বিশ্ব ‘সিঙ্গেলস ডে’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: প্রেমিক যুগলরা নিজেদের মধ্যে প্রতিটা মুহূর্ত উপভোগের পাশাপাশি উদযাপন করে থাকেন ভালোবাসা দিবসসহ নানা দিবস। আর এসব দিবসগুলো সিঙ্গেলদের জন্য একটু বিরক্তিকরই। তবে, সিঙ্গেলদের...