শনিবার, নভেম্বর ২৬, ২০২২

বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ সবার আগে

কক্সবাজারে কউকের উচ্ছেদ অভিযান : ভেঙ্গে দেয়া হলো ১৫০ দোকান

টিটিএন ডেস্ক :

কক্সবাজারে উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ ও গণপূর্ত বিভাগের যৌথ উচ্ছেদ অভিযান পরিচালিত হয়েছে। মঙ্গলবার (২৭ সেপ্টেম্বর) বিকাল ৪ টা হতে বিকাল ৬টা পর্যন্ত এ উচ্ছেদ অভিযান চলে।

কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের সচিব আবু জাফর রাশেদ এর নেতৃত্বে গণপূর্ত বিভাগ, জেলা পুলিশ, আনসার এবং বিদ্যুৎ বিভাগ এর সার্বিক সহযোগিতায় গণপূর্ত বিভাগের মালিকানাধীন সমুদ্র সৈকত আবাসিক এলাকার ব্লক এ এবং ব্লক বি এর মধ্যবর্তী গণপূর্তের মালিকানাধীন মাঠে অবৈধভাবে গড়ে উঠা দোকানগুলোতে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়। এ সময় গণপূর্তের মালিকানাধীন মাঠে অভিযান চালিয়ে অবৈধভাবে গড়ে উঠা প্রায় ১৫০টি দোকান ভেঙ্গে দেয়া হয়।

সরেজমিনে দেখা গেছে, উক্ত স্থানে কক্সবাজার বাহারছড়ার গিয়াস উদ্দিন, মহিলা কাউন্সিলর নাছিমা বকুল, স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা আবদুর রহমান, পর্যটন ব্যবসায়ী তোফাইল আহমদ মিলে আদালতের কথা বলে দোকানীদের কাছ থেকে মোটাংকের সালামী ও ভাড়া নিয়ে অবৈধভাবে দখলে ছিল। এখন উচ্ছেদের ফলে ক্ষতিগ্রস্ত দোকানমালিকরা তাদের উপর ক্ষিপ্ত হয়েছেন।
এ ব্যাপারে কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান কমোডর মোহাম্মদ নুরুল আবছার, বলেন, কক্সবাজার গণপূর্ত বিভাগের কাগজপত্র পর্যালোচনা করে দেখা যায়, এই জায়গার মালিক কক্সবাজার গণপূর্ত বিভাগ এবং গণপূর্ত বিভাগের নামে বিএস খতিয়ান এবং গেজেট প্রকাশিত হয়েছে। জনৈক গিয়াস উদ্দিন গং এর ক্ষতিপূরণের টাকা পায় নাই মর্মে মিথ্যা মামলা দায়ের করে।

পরবর্তীতে ভূমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তার প্রতিবেদনে দেখা যায়, গিয়াস উদ্দিন গং এর ক্ষতিপূরণ বাবদ সব অর্থ পেয়েছিলেন। ২০১৮ সালে গণপূর্ত বিভাগ এই মাঠ প্রকল্পের কাজ শুরু করলে গিয়াস উদ্দিন গং সরকারের উন্নয়নমূলক কাজের বিরুদ্ধে পিতা ও চাচার আরএস মূলে দাবি করে বিজ্ঞ যুগ্ম জেলা জজ আদালতে আবেদন করেন।

৩১-০৫-২০১৯ তারিখ Injunction বিজ্ঞ যুগ্ম জেলা জজ আদালত তার আবেদন খারিজ করে দেন। এতে সংক্ষুব্ধ হয়ে উক্ত গিয়াস উদ্দিন গং মহামান্য হাইকোর্টে Miscellaneous আপীল নং-FMA ৫৯৭/২০১৯ দায়ের করেন এবং এতে গণপূর্তের প্রকল্প কাজের উপর ৬ (ছয়) মাসের Status quo দেয়া হয় যা ক্রমাগত মেয়াদ বাড়তে থাকে। অবশেষে গত ২৩-০৮-২০২২ তারিখ মহামান্য হাইকোর্ট উক্ত status quo Vacate করে দেন এবং একই আদেশে কক্সবাজার জেলা জজ আদালতে চলমান মূল মামলাটি বাতিল করে দেন।

এছাড়া মহামান্য হাইকোর্টের status quo vacate এর ফলে উচ্ছেদ করতে আইনগত কোনো বাধা নাই মর্মে এটর্নি জেনারেল অফিস থেকে লিখিতভাবে জানিয়েছেন।
তিনি আরও বলেন, কক্সবাজারকে একটি পরিকল্পিত পর্যটন নগরী হিসেবে বাস্তবায়নের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ প্রতিষ্ঠা করেছেন এবং কক্সবাজারকে একটি আধুনিক ও পরিকল্পিত পর্যটন নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ বদ্ধপরিকর। তাই পরিকল্পিত নগরী বাস্তবায়নে অবৈধ স্থাপনার বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে।

সর্বশেষ খবর

নেইমারের পা ভাঙুক বলছেন ব্রাজিলিয়রা

টিটিএন স্পোর্টস: বিশ্ব কাঁপছে ফুটবল উন্মাদনায়। দুই বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা ও চার বারের চ্যাম্পিয়ন জার্মানি হেরে গেলেও জয় পেয়েছে নেইমারের ব্রাজিল। কিন্তু নেইমারের পা...

মেক্সিকোর বিপক্ষে মেসির দল কেমন খেলে

  টিটিএন ডেস্ক: ডু অর ডাই ম্যাচে রাতে মেক্সিকোর মুখোমুখি হতে যাচ্ছে আর্জেন্টিনা। কাতার বিশ্বকাপ আসরে নিজেদের প্রথম ম্যাচ হেরে পিছিয়ে লিওনেল মেসির দল। তাইতো মেক্সিকোর...

ফ্রি IELTS কোর্স সহ যুক্তরাজ্যে স্কলারশিপ পরামর্শ দিতে কক্সবাজারে হচ্ছে UK EDUCATION MEET 2022

বিশেষ প্রতিবেদকঃ যুক্তরাজ্যের স্বনামধন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক শিক্ষা লাভের সুযোগ নিয়ে UK Education Meet 2022 শুরু হতে যাচ্ছে কক্সবাজারে। রোববার বেলা ১১টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত দিনব্যাপী...

জেলা নির্মান শ্রমিকদের ফুটবল টূর্নামেন্ট উদ্বোধন 

টিটিএন ডেস্ক : প্রতি বছরের ন্যায় কক্সবাজার জেলা নির্মাণ শ্রমিক উন্নয়ন সমিতি এবারও আয়োজন করেছে আন্তঃ গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্ণামেন্টের। শুক্রবার বেলা ৩ টায় শহরের দক্ষিন রুমালিয়ার...