মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২২

বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ সবার আগে

আম ২২ জাতের : বিনা মূল্যে পায় অসুস্থ ও শিশুরা

শিপ্ত বড়ুয়া, রামু প্রতিনিধি:

শুরুটা ছিল বন্ধুর। ভাগ্য বদলাতে খামার করতে গিয়ে প্রাকৃতিক দুর্যোগে হয়েছিল বেজায় ক্ষতি। এরপর ধার–দেনায় আবার নতুন করে শুরু। এখন নাইক্ষ্যংছড়ির দুর্গম এলাকায় পুলক বড়ুয়ার খামারে মেলে ২২ জাতের আম। শুধু তাই নয়, এলাকার অসুস্থ, গর্ভবতী নারী ও শিশুরা বিনা মূল্যে এই খামার থেকে পায় ফলমূল।

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলায় ব্যানানা ম্যাঙ্গো, থাইল্যান্ডের নাম ডক মাই, গৌড়মতী, মহাচানক, সূর্যডিম্ব, হিমসাগর, আশ্বিনা, মল্লিকা, চৌষা, কাটিমোহন ও বারি-৪ জাতের আমগুলো প্রথমবারের মতো পরীক্ষামূলকভাবে চাষ করেন খামারি পুলক বড়ুয়া (৪৬)। একই সঙ্গে তিনি লিচু, ড্রাগন, লেবু, পেঁপে ও শীতকালীন সবজিও চাষ করছেন।

পুলক জানান, ১৯৯৩ সালে রামু খিজারী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাশ করেছিলেন তিনি। তবে দারিদ্র্যের কারণে উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা আর দেওয়া হয়নি তাঁর। ভাগ্য বদলাতে ঝুঁকে পড়েন কৃষিতে। ২০১৪ সালের শুরুর দিকে তিন বন্ধু মিলে লেবু, পেঁপে ও শীতকালীন সবজি দিয়ে শুরু করেন খামার। কক্সবাজারের রামু উপজেলা থেকে মাত্র ২০ কিলোমিটার দূরে খামারটির অবস্থান। এটি নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার মারেগ্যাপাড়ার বৈদ্যপাড়ার ‘তরুপল্লব বহুমুখী প্রাকৃতিক খামার’ নামে পরিচিত।

খামার করার শুরুর দিকে লাভের মুখ দেখার আগেই প্রাকৃতিক দুর্যোগে পড়ে ধ্বংস হয়ে যায় খামারের গাছপালা, মুখোমুখি হতে হয় বিশাল ক্ষতির। পরে বিভিন্ন জায়গা থেকে টাকা ধার নিয়ে আবারও শুরু হয় খামারের কাজ। এরপর ময়মনসিংহের কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়সহ নানা জায়গা থেকে চারা সংগ্রহ করেন তিনি। রোপণ করেন উন্নত জাতের বিভিন্ন আম গাছ, লেবু গাছ, পেয়ারা, মাল্টা, লিচুসহ প্রায় ১২ প্রজাতির ফলজ চারা। পাহাড়ি অঞ্চল হওয়ায় হাতির আক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে খামার বাড়ির চারপাশে রোপণ করেছিলেন প্রায় চল্লিশটিরও বেশি কাঁটাযুক্ত বারি ও বাউ জাতের ড্রাগন ফলগাছ। এখন সেই ড্রাগন ফলের গাছ থেকেও অতিরিক্ত অর্থ আয় করছেন তিনি।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, প্রায় চার একর জায়গাজুড়ে প্রায় ১২ প্রজাতির ফলদ গাছ আছে খামারে। সেখানে থোকায় থোকায় ধরে আছে আম। সেগুলোর মধ্যে কোনটি লম্বা, কোনটি গোল, কিছু আম আবার ছোট। পাশাপাশি ড্রাগন ও লিচু গাছেও এসেছে মুকুল। অনেক গাছে ধরেছে বিভিন্ন জাতের লেবু। খামারে পেয়ারা পেকে লাল হয়ে আছে। এলাকাটি পাখির কিচিরমিচির শব্দে সারাক্ষণ মেতে থাকে।

খামারের বিষয়ে পুলক বড়ুয়া বলেন, ‘আমার খামারে আম্রপালি, মল্লিকা, হাঁড়িভাঙা, থাইল্যান্ডের নাম ডক মাই, ব্যানানা ম্যাঙ্গো, ইন্ডিয়ান চৌষা, জাপানি মিয়াজাকিসহ আরও ২২ জাতের আম আছে। বাগানের একপাশে রয়েছে কয়েকটি ভালো জাতের পেয়ারা, পেঁপে ও মাল্টা গাছ। হাতির আক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে রোপণ করা ড্রাগন ফলের গাছ থেকেও এ বছর প্রায় ৬০০ কেজি ফল পাওয়ার আশা আছে।’

ময়মনসিংহ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়সহ নানা জায়গা থেকে চারা সংগ্রহ করে খামার করেন পুলক বড়ুয়া।

পুলক আরও জানান, বাজারে প্রতি কেজি ড্রাগন ফলের খুচরা বিক্রয়মূল্য ৫০০-৬০০ টাকা। ড্রাগন বিক্রি করেই সাড়ে ৩ লাখের বেশি আয় হবে। পাশাপাশি প্রায় ২২ প্রজাতির আম গাছ থেকে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা আড়াই টন। গড়ে প্রতি কেজি আম ১২০ টাকায় বিক্রি হলেও ৩ লাখ টাকা আয় হতে পারে। সব মিলিয়ে বছরে ১০ লাখ টাকার বেশি আয়ের আশা আছে পুলকের। ফলমূলের খামারের পাশাপাশি মাছ ও দেশীয় জাতের মুরগি পালনের ভাবনাও আছে বলে জানান তিনি।

বাগানের কোনো গাছেই ক্ষতিকর কীটনাশক ও রাসায়নিক সার ব্যবহার করেন না পুলক বড়ুয়া। তিনি জানান, শুধুমাত্র জৈব সার দেওয়া হয়। তবে পোকা দমনের জন্য তিনটি পদ্ধতি ব্যবহার করা হচ্ছে। ফলের মাছি-পোকা দমনে ইয়েলো কার্ড, সাইড ফেরমুন ট্যাব, ফ্রুট ব্যাগিং পদ্ধতি ব্যবহার করা হয়।

বৈদ্যপাড়ার ওই গ্রামের বেশির ভাগ জনগোষ্ঠী রাখাইন ও মারমা সম্প্রদায়ের। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, অনেক গর্ভবতী মহিলা ও শিশুরা প্রায় সময় বাগানের বিভিন্ন ফলমূল বিনা মূল্যে নিয়ে যেতে পারেন। মারেগ্যপাড়ার ইউপি সদস্য থোইয়্যংকা যাই বলেন, ‘পুলকের ফলজ খামার থেকে আমাদের এলাকার একাধিক নারী, পুরুষ ও বৃদ্ধরা পুষ্টির চাহিদা মেটান। বিনা মূল্যেই বেশির ভাগ মানুষ তাঁর বাগান থেকে ফলমূল নিয়ে আসেন।’

খামার করতে ফল বিজ্ঞানী ও কৃষিবিদ সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সাবেক দুই মহাপরিচালক এম. এনামুল হক ও এস. এম কামরুজ্জামান নিয়মিত পরামর্শ দিয়ে সহায়তা করছেন পুলককে। পাশাপাশি প্রয়োজনীয় তথ্য খুঁজতে অনলাইন মাধ্যমকেও ব্যবহার করছেন তিনি।

খামারের বিষয়ে সরকারি কৃষি অফিস থেকে পর্যাপ্ত সহায়তা পেলে সুবিধা হতো বলে জানান পুলক বড়ুয়া। তিনি বলেন, ‘দু-একবার আম ও মাল্টা গাছের চারা দেওয়া হয়। কিন্তু সেগুলো ভালো জাতের না হওয়ায় শুধু শুধু সময় আর শ্রম ব্যয় হয়। লাভের চেয়ে বরং ক্ষতি হয়েছিল। যদি সরকারি প্রণোদনা ও সহজ শর্তে মাঝারি অঙ্কের ঋণ দেওয়া হয় তাহলে দেশের অনেক বেকার যুবকেরা কৃষিতে মনোযোগী হবেন।’

এ বিষয়ে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা সালমা ফেরদৌস বলেন, পাহাড়ি এলাকায় তামাকের বদলে ফলজ, বনজ ও উৎপাদনমুখী কৃষিতে উৎসাহ দেওয়া হয়। উপজেলার পক্ষ থেকে সব সময় এসব উদ্যোক্তাদের নানা রকম সহায়তা দেওয়ার চেষ্টা চলে।

সর্বশেষ খবর

ফুটবল ট্রফি ভাঙা আলীকদমের সেই ইউএনওকে বদলি

টিটিএন ডেস্ক : বান্দরবানের আলীকদমে ফুটবল খেলার ট্রফি ভাঙার ঘটনায় আলোচিত সেই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মেহেরুবা ইসলামকে ঢাকা বিভাগের বদলি করা হয়েছে।...

মারা গেছেন প্রভাবশালী ধর্মীয় নেতা ইউসুফ-আল-কারযাভী

টিটিএন ডেস্ক: মুসলিম বিশ্বের অন্যতম প্রভাবশালী ধর্মীয় নেতা শেখ ইউসুফ-আল-কারযাভী মারা গেছেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৯৬ বছর। মিশরীয় ধর্মীয় নেতা কারযাভী কাতারে বসবাস করতেন। সোমবার...

পর্যটন দিবসে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় আয়োজনের শুরু কক্সবাজারে

আব্দুর রশিদ মানিক: কক্সবাজারের পর্যটনকে বিশ্ব দরবারে তুলে ধরতে আন্তর্জাতিক পর্যটন দিবস উপলক্ষে কক্সবাজারে অনুষ্ঠিত হচ্ছে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় উৎসব। কক্সবাজারকে বলা হয় পর্যটন রাজধানী। তাই...

কক্সবাজার জেলা পরিষদ নির্বাচন : প্রতীক পেয়ে প্রচারে নামলেন প্রার্থীরা

শাহেদ হোছাইন মুবিন : কক্সবাজার জেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দ সম্পন্ন হয়েছে। সোমবার সকালে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের শহীদ এটিএম জাফর আলম সম্মেলন কক্ষে...