সোমবার, জানুয়ারি ৩০, ২০২৩

বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ সবার আগে

অষ্টম উইকেট জুটিতে বাংলাদেশের কাছ থেকে জয় ছিনিয়ে নিল ভারত

বড়দিনের সকাল এসেছিল মিরপুর টেস্টে রোমাঞ্চের হাতছানি দিয়েই। মেহেদী হাসান মিরাজের করা দিনের তৃতীয় বলেই হয় প্রথম রিভিউ। ব্যাট-প্যাড একসঙ্গে রেখে ডিফেন্ড করতে গিয়েছিলেন নাইটওয়াচম্যান জয়দেব উনাদকাট। ব্যাটের আগে প্যাডেই লেগেছিল বল, তবে উইকেটে অল্পের জন্য হয় আম্পায়ার্স কল। ঠিক পরের বলেই ছক্কা মেরে বাংলাদেশের হতাশা বাড়ালেও উনাদকাট অবশ্য এরপর বেশিক্ষণ টেকেননি। পরের ওভারে সাকিবকে ব্যাকফুটে খেলতে গিয়ে হন এলবিডব্লু।

ক্রিজে আসেন ঋষভ পন্ত, যাঁর দিকে অনেকটাই তাকিয়ে ছিল ভারত। সীমানার ওপর যান পাঁচজন ফিল্ডার। সাকিবকে রিভার্স সুইপ করে নিজের সহজাত খেলাও শুরু করেন পন্ত। কিন্তু এ উইকেটকিপার ব্যাটসম্যানের সঙ্গে লড়াইটা জেতেন মিরাজই। জোরের ওপর করা বলটিতে সামনে ঝুঁকে ডিফেন্ড করতে গিয়েও মিস করে যান পন্ত, মিরাজ আবেদনের আগেই শুরু করে দেন উদ্‌যাপন। আম্পায়ার ক্রিস ব্রাউনের এলবিডব্লুর সিদ্ধান্ত শেষ পর্যন্ত রিভিউ না করার সিদ্ধান্ত নেন পন্ত, পরে বল ট্র্যাকিং-ও দেখায়, রিভিউ নিলে সেটি অপচয়ই হতো।

পরের ওভারে এসে মিরাজ নেন ইনিংসে পঞ্চম উইকেটটি। এবার তাঁর শিকার অক্ষর প্যাটেল। পেছনের পায়ে ভর দিয়ে খেলতে চেয়েছিলেন, তবে নিচু হওয়া বলটির নাগাল পাননি। অক্ষরের প্যাডে লেগে বল আঘাত করে স্টাম্পে। আজও শর্ট বল পেয়ে পুল করে একটি চার মেরেছিলেন অক্ষর, তবে তাঁকে থামতে হয় ৩৪ রানেই। অক্ষর আউট হওয়ার সময়ও ভারত জয় থেকে ৭১ রান দূরে দাঁড়িয়ে।

মিরাজ পেয়ে যেতে পারতেন ষষ্ঠ উইকেটটিও, তবে শর্ট লেগে ওঠা অশ্বিনের ক্যাচটি নিতে পারেননি মুমিনুল। গতকাল এ পজিশনেই কোহলির দারুণ একটি ক্যাচ নিয়েছিলেন তিনি। অশ্বিনের ক্যাচ পড়ার সময় শর্ট মিডউইকেটে থাকা সাকিব আফসোসে প্রায় শুয়েই পড়েন! অশ্বিন তখন ব্যাটিং করছিলেন ১ রানে, ভারতের প্রয়োজন ছিল ৬৫ রান। শ্রেয়াস আইয়ারের সঙ্গে সেই অশ্বিনের জুটি এরপর অবিচ্ছিন্ন থাকে প্রথম ঘণ্টায়।

দুই ডানহাতির বিপক্ষে কাজটা এরপর তুলনামূলক কঠিন হয়ে পড়ে মিরাজের, প্রথম পানি পানের বিরতির পরপরই স্কয়ার ড্রাইভে চার মারেন শ্রেয়াস, ৬৮ বলের মধ্যে ইনিংসে সেটি ছিল প্রথম বাউন্ডারি। দুই ওভার পর সাকিবকে এক্সট্রা কাভার দিয়ে চারের পর টেনে লং অন দিয়ে আরেকটি চার মারেন শ্রেয়াস। পরের চারটিতেই ১০০ পেরিয়ে যায় ভারত। ইনিংসের ৪১তম ওভারে সাকিবকে দুই চার মারেন শ্রেয়াস।

৪৩তম ওভারে দিনে প্রথমবারের মতো পেসার আনেন সাকিব, তবে খালেদের ওই ওভারে অশ্বিন মারেন দুটি চার—প্যাডের ওপর থেকে ক্লিপ করার পর ড্রাইভে। খালেদের পরের ওভারে ৫০ রান ছুঁয়ে ফেলেন অশ্বিন-আইয়ারের জুটি। খালেদকে সরিয়ে এরপর মিরাজকে আনেন সাকিব, কিন্তু প্রথম বলটি আলগা পেয়ে ওয়াইড লং দিয়ে ছক্কা মারেন অশ্বিন। জয় থেকে ভারতের দূরত্ব নেমে আসে ১০ রানে।

পরের বলে ডাবলসের পর এক্সট্রা কাভারের ওপর দিয়ে তুলে চার মারেন অশ্বিন। ওভারের শেষ বলে লং অন দিয়ে মারা আরেকটি চারে ভারতের দুর্দান্ত এক জয় নিশ্চিত করেন অশ্বিন, বাংলাদেশ ডোবে হতাশায়।

সর্বশেষ খবর

নির্মাতা কাওসার চৌধুরী পাচ্ছেন জাতীয় চলচিত্র পুরস্কার

নিজস্ব প্রতিবেদক: কক্সবাজারের মহেশখালীর মাতারবাড়ির কৃতি সন্তান বিশিষ্ট চলচ্চিত্র নির্মাতা ও অভিনেতা কাওসার চৌধুরী জাতীয় চলচিত্র পুরুষ্কার ২০২১ এর জন্য মনোনীত হয়েছেন। তিনিই প্রথম ব্যাক্তি...

পাঠ্যবই নিয়ে গুজব ছড়ানো হচ্ছে: শিক্ষামন্ত্রী

টিটিএন ডেস্ক: শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, নতুন পাঠ্যক্রমে কোনো ভুলভ্রান্তি থাকলে তা সংশোধন করা হবে। তবে এ নিয়ে অপপ্রচার চলছে। আওয়ামী লীগ সরকার কখনো ইসলামের...

কক্সবাজারের ই”য়াবার মামলায় ৮ মিয়ানমার নাগরিকের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

আব্দুর রশিদ মানিক: দুই লক্ষ ইয়াবা উদ্ধারের মামলায় আট রোহিঙ্গাকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড প্রদান করেছে কক্সবাজারের অতিরিক্ত দায়রা জজ আদালত। একইসাথে দন্ডিতদের প্রত্যেককে ১ লক্ষ টাকা...

২৭ দিনে ১৬৭ কো‌টি ডলার পাঠালেন প্রবাসীরা

টিটিএন ডেস্ক: বছরের শুরুতে প্রবাসী আয়ের ঊর্ধ্বমুখী ভাব অব্যাহত আছে। চলতি বছরের প্রথম মাস জানুয়ারির ২৭ দিনে ১৬৭ কো‌টি মার্কিন ডলার পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। টাকার অংকে যার...